অভিজিৎ হত্যা মামলা; রায়ে সন্তুষ্ট নন স্ত্রী বন্যা - Jamuna.News
ব্রেকিং নিউজ

অভিজিৎ হত্যা মামলা; রায়ে সন্তুষ্ট নন স্ত্রী বন্যা

প্রবাস ডেস্ক : ব্লগার অভিজিৎ রায় হত্যা মামলার রায়ে সন্তুষ্ট হতে পারেননি তার যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যা। বহুল আলোচিত এই মামলার রায় প্রকাশের পর তিনি যুক্তরাষ্ট্র থেকে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এক পোস্টে এ প্রতিক্রিয়া জানান।

হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের (এবিটি) পাঁচ সদস্যের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। অপর একজন আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমানের আদালতে এ রায় দেয়া হয়।

বন্যা তার পোস্টে বলেন, ‘ছয় বছরের দ্বিধা ও বিলম্বের পর আমরা আজকে একটি রায় পেলাম। ২০১৫ সালে আমি ও অভিজিৎ বাংলাদেশে গিয়েছিলাম বই মেলায় অংশ নিতে। সেখানে তার দুটি বই প্রকাশের কথা ছিল। আমরা জঙ্গি হামলার শিকার হলাম এবং অভিজিৎ মারা গেল, আমি কোনো মতে বেঁচে গেলাম। এই মৃত্যুর মিছিল আরও এক বছর চলমান ছিল।’

তিনি বলেন, ‘আজকে আদালত রায় দিয়েছেন। হামলাকারীরা বিজ্ঞান, দর্শন ও ধর্ম সম্পর্কিত বই ও ব্লগ লেখার জন্য অভিজিৎকে হত্যা করেছে কিনা, আদালত তার বিচার করছিল। এই রায় আমার কিংবা আমার পরিবারের কাছে কোনো অবসান নয়। আমি এটা কখনো আশা করিনি। গত ছয় বছরে এই মামলার তদন্তকারী কেউ আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। যদিও আমি একজন প্রত্যক্ষদর্শী ও হামলার একজন ভুক্তভোগী। জানুয়ারিতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী প্রকাশ্যে মিথ্যা বলেছেন যে, আমি সাক্ষ্য দিতে রাজি নই। আসল কথা হচ্ছে, বাংলাদেশ থেকে সরকারের কেউ কিংবা প্রসিকিউশনের কেউ আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেনি।’

রায় প্রসঙ্গে বন্যা লেখেন, ‘জঙ্গি সংগঠন যারা আমাদের ওপর হামলা চালিয়েছিল, তাদের দুই হোতা সৈয়দ জিয়াউল হক (বরখাস্ত মেজর জিয়া) এবং আকরাম হোসেনকে কোনো সময় আইনের আওতায় আনা সম্ভব হয়নি। গত সপ্তাহে প্রকাশক দীপন হত্যা মামলার রায়ের পর আমরা জানতে পারি- হক বাংলাদেশের মুক্তমনা লেখক, প্রকাশকদের হত্যার পরিকল্পনা করে আসছিল। আমাদের ওপর হামলার পর ৮ মাস ধরে। তবু বাংলাদেশ সরকার তাদের আইনের আওতায় আনতে ব্যর্থ হয়েছে।’

Print Friendly, PDF & Email