ব্রেকিং নিউজ

কারখানা বন্ধ করা যাবে না : শ্রম প্রতিমন্ত্রী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা : করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত সংকটময় পরিস্থিতির মাঝেও আপাতত কোনো কারখানা বন্ধ হবে না বলে জানিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান। তিনি বলেন, কোনো কারখানা যেন বন্ধ না হয় এ ব্যপারে মালিকদের সঙ্গে কথা হয়েছে।

শনিবার রাজধানীর বিজয় নগরের শ্রম ভবনে এক জরুরি সভা শেষে সাংবাদিদের এ কথা জানান শ্রম প্রতিমন্ত্রী।

‘করোনাভাইরাস সংক্রমণে উদ্ভূত সমস্যা মোকাবেলায় শিল্প কারখানার শ্রম পরিস্থিতি সম্পর্কে এক জরুরি সভা’ শেষে শ্রমপ্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

বৈঠক শেষে এফবিসিসিআইয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আমরা আজকে বিভিন্ন সেক্টরের সার্বিক বিষয়ে আলোচনা করেছি। সব স্টক হোল্ডাররা উপস্থিত ছিল। সবাই মিলে একটাই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে- আমাদের ফ্যাক্টরিগুলোর চাকা চলবে। শ্রমিকের জন্য যতক্ষণ চালু রাখা সম্ভব আমরা চালিয়ে রাখবে। শ্রমিদের সচেতন করার জন্য আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি। তাদের (শ্রমিকদের) স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যপারে আমরা সচেতন আছি।

আশঙ্কা প্রকাশ করে বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘বৈশ্বিক সমস্যা ওরকম কিছু হলে তখন সিদ্ধান্ত নেব, সেটাতো আগেই বলা যায় না।’

বিকেএমইএর সভাপতি সেলিম ওসমান বলেন, ‘আগামীকাল সংশ্লিষ্ট সেক্টরের সঙ্গে আলোচনা হবে। তারপর আমরা বুঝতে পারব আমাদের কী করণীয় হবে। সামনে রোজা আছে, ঈদের বোনাস আছে। আগামী জুন মাস পর্যন্ত কীভাবে শ্রমিকদের ঠিকভাবে বেতন-বোনাস দিতে পারব সে বিষয়ে আমাদের করণীয় নিয়ে আলোচনা করব। শ্রমিদের যেন কোনো অসন্তোষ না হয় সে বিষয়ে আমাদের লক্ষ রাখতে হবে। শ্রমিক বাঁচলে শিল্প বাঁচবে।’

‘আমাদের পর্যবেক্ষণগুলো নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরব। আশা রাখি তিনি আমাদের নিরাশ করবেন না।’

উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএর সভাপতি রুবানা হক, বিকেএমইএর সভাপতি সেলিম ওসমান, বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি সংসদ সদস্য সালাম মুর্শেদী, শ্রম সচিব, বাণিজ্য সচিব, গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নের সভাপতি মন্টু ঘোষসহ শ্রমিক নেতারা।

Print Friendly, PDF & Email