ব্রেকিং নিউজ

সৌদি থেকে ফিরলেন আরও ১৩৭ বাংলাদেশি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা : নতুন বছরের শুরুতে সৌদি আরব থেকে নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরেছেন ৪৫৪ জন। রোববার রাতে দেশে ফিরেছেন নারীসহ আরও ১৩৭ বাংলাদেশি। দুটি বিমানে করে সৌদি আরব থেকে তারা দেশে ফিরলেন।

দেশে ফেরা আকমিনা আক্তার (৩০) বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের জানান, তার বাড়ি সুনামগঞ্জ জেলার নরুত্তমপুর গ্রামে। তিনি সাত মাসে আগে গৃহকর্মীর কাজ নিয়ে সৌদি আরব গিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে নিয়োগকর্তার শারীরিক নির্যাতনে শিকার হয়ে শুন্য হাতে দেশে ফিরতে বাধ্য হয়েছেন।

সৌদিতে নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে তিনি জানান, সৌদি যাবার পর থেকে তাকে গড়ে ১৮/২০ ঘণ্টা কাজ করতে হয়েছে। কাজ শেষে ঘুমাতে গেলে মালিক বিরক্ত করতো, কাজ করলেও বেতন দেওয়া হতো না। কাজ শেষে পাওনা চাইলে মালিক বলতেন তাকে নাকি বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে।

আরেক নারী গৃহকর্মী হাসিনা আক্তার (২৭)। তার বিাড়ি হবিগঞ্জ জেলায় গত আট মাস আগে তিনি সৌদি আরবে গিয়েছিলেন। তারও গল্প একই। তার ওপর নির্যাতনের মাত্রা এতই বেশি যে বিমানবন্দরে দাঁড়াতেই পারছিলেন না।

ফেরত আসা টাঙ্গাইল জেলার দেলদুয়ার উপজেলার সাদ্দাম হোসেন জানান, মাত্র একবছর আগে এসি টেকনিশিয়ানের কাজ নিয়ে ৪ লাখ ১০ হাজার টাকা খরচ করে সৌদিতে পাড়ি জমান। সেখানে চার মাস কাজ করলেও সঠিক বেতন পাননি সাদ্দাম। তারপরেও হাল ছাড়েননি কাজ থেকে রুমে ফেরার পথে পুলিশ ধরে আকামা থাকা সত্বেও দেশে ফেরত পাঠান সাদ্দামকে।

সুমানগঞ্জের আবুল কালাম জানান, দুই বছর আগে প্রিন্টিং এর কাজ নিয়ে ৫ লাখ চাকা খরচ করে গিয়েছিলেন সৌদি আরবে। কিন্তু ভাগ্যের চাকা না ঘুরতেই দেশে ফিরে আসতে হল তাকে।

ব্র্যাকের অভিবাসন কর্মসূচির প্রধান শরিফুল হাসান জানান, ২০১৯ সালে সৌদি আরব থেকে ২৪ হাজার ২৮১ জন বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। নতুন বছরের শুরুর পাঁচ দিনে ফিরলেন ৪৫৪ জন। এইভাবে ব্যর্থ হয়ে যারা ফিরছেন তাদের পাশে সবার দাঁড়ানো উচিত। এক্ষেত্রে রিক্রটিং এজেন্সিকেই সবচেয়ে বেশি দায়িত্বশীল হতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email